সোহেল এক হাজার জোড়া কবুতরের মালিক।

0
338

OURBANGLANEWS DESK।

রাজধানীর পুরান ঢাকার স্থানীয় সবাই এক নামে চেনেন এরফান আহমেদ সোহেলকে।

তার কবুতর সাম্রাজ্য নিমতলীর নিজ বাড়ির ছাদ ও কয়েকটি কক্ষ জুড়ে। তিনি মালিক এক হাজার জোড়া কবুতরের।

সোহেল সাতসকালেই বাড়ির ছাদে থাকা কবুতরের ঝাঁপির কাছে পৌঁছে যান। শান্তি পান না তাদের আকাশে না ওড়াতে না পারলে।

তিনি কবুতরগুলোর বেশিরভাগকেই প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়ার প্রশিক্ষণ দেন। তিন যুগ ধরে চলছে এভাবেই।

শখের বশে শুরু। তবে লাভবান হয়েছেন আর্থিকভাবেও। এই চিলা কবুতরগুলোর ভালবাসার মায়ায় এক সময় এমনভাবে জড়িয়েছেন যে, তাকে মানুষ ‘চিলা সোহেল’ বলে ডাকে ।

এরফান আহমেদ সোহেল কবুতর পালনকারী বলেন, একে চিলা কবুতর ডাকা হয় চিলের মত দেখতে এবং লাল রঙ বলে।

আমি এ সংগ্রহশালা তৈরি করেছি আমাদের এলাকায় যারা কবুতর পালতেন তাদের কাছ থেকে অনুমতি সাপেক্ষে কবুতর নিয়ে।

তার সংগ্রহশালায় ২৬ বছর বয়সী চিলাও রয়েছে। দেশি-বিদেশি আরও নানা জাতের কবুতরে ভরপুর প্রজনন কক্ষ।

সৌদি আরব থেকে আনা ড্রাগন রেসার নামে একজোড়া কবুতর তার সংগ্রহে থাকা কবুতরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য। কমপক্ষে চার লক্ষ টাকাএই কবুতরের দাম।

কয়েকজন সহযোগী সাহায্য করেন এত কবুতরের দেখভালে। তার বিশাল পাখিশালা দেখতে আসেন দেশ-বিদেশের অনেকে।

সোহেল দাবি জানান তরুণদের উপহার হিসেবে কবুতর দেয়ার রেওয়াজ চালু করার।

আরো বলেন এরফান আহমেদ সোহেল, অন্যরকম একটা নেশা কবুতর পালন করা।

এটি বেশ ভালো ভূমিকা রাখতে পারে যুবসমাজকে সঠিক পথে রাখতে।

দেশি জাত হারিয়ে যাচ্ছে বিদেশি জাতের কবুতরের ভিড়ে। সোহেল জানান আজীবন উদ্যোগ থাকবে ‘চিলা কবুতর’ সংরক্ষণে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে