শিক্ষার্থী নিখোঁজের তিন দিন পর উদ্ধার।

0
212

OURBANGLANEWS DESK।

মৌলভীবাজারের কুলাউড়াতে নিখোঁজের তিন দিন পর খোঁজ মিলেছে সৈয়দ হোসাইন আহমদ ওরফে মারজুক (২২) নামের এক শিক্ষার্থীর।

পুলিশ তাঁকে সোমবার ভোরে জেলা সদরের একটি পেট্রল পাম্পের সামনে অসুস্থ অবস্থায় পায়। পরে জেলার ২৫০ শয্যার হাসপাতালে নেওয়া হয় ওই শিক্ষার্থীকে চিকিৎসার জন্য।

জুড়ী উপজেলার সৈয়দ হারুনুর রশীদের ছেলে হোসাইন। কুলাউড়া ডিগ্রি কলেজে তিনি পড়েন স্নাতক প্রথম বর্ষে।

স্বজনদের ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, হোসাইন লেখাপড়া করেন নানার বাড়িতে কুলাউড়া পৌর শহরের মাগুরা এলাকায় থেকে।

পাশাপাশি তিনি কাজ করেন একটি ওষুধের দোকানে। তিনি বাড়ি যাওয়ার জন্য গত শুক্রবার রাতে কুলাউড়ার রেলস্টেশন এলাকায় অপেক্ষায় ছিলেন গাড়ির। এমনটাই মুঠোফোনে মাকে জানান।

তাঁর মুঠোফোনটি এর কিছু সময় পর বন্ধ পাওয়া যায়। বিভিন্ন স্থানে স্বজনেরা খোঁজাখুঁজি করেও সন্ধান পাননি তাঁর। হোসাইনের বাবা এ ঘটনায় একটা

সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন কুলাউড়া থানায়। এরপর টহল পুলিশের একটি দল সোমবার ভোর পাঁচটার দিকে তাঁকে খুঁজে পান অসুস্থ অবস্থায়।

স্বজনদের বিষয়টি জানায় হোসেনের মুঠোফোন থেকে নম্বর নিয়ে পুলিশের দলটি।

হাসপাতালে থাকা হোসাইনের বাবা হারুনুর রশীদের বলেন, ‘হোসাইন দুর্বল হয়ে পড়েছে। তাকে স্যালাইন দেওয়া হচ্ছে।

কারও সঙ্গে সে কোনো কথা বলছে না।’ দাবি করেন তিনি, কারও বিরোধ নেই তাঁর ছেলের সঙ্গে এবং ছেলের সংশ্লিষ্টতা নেই কোনো রাজনৈতিক সংগঠনের সঙ্গেও।

সঞ্জয় চক্রবর্তী কুলাউড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বলেন, তাঁরা তদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠিয়েছিলেন কর্মকর্তা।

তবে হোসাইন চিকিৎসাধীন থাকায় কথা বলা সম্ভব হয়নি। তাঁকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে সুস্থ হওয়ার পর।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে