মোল্লাহাটে প্রশাসনের কঠোর নজরদারিতে করোনা পরিস্থিতি এখনো ভাল রয়েছে

0
328

মোল্লাহাটে প্রশাসনের কঠোর নজরদারিতে করোনা পরিস্থিতি এখনো ভাল রয়েছে

করোনা ভাইরাস আক্রান্ত সন্দেহে দুইজনের নমুনা পরিক্ষার ফলাফল নেগেটিভ ।

মোহাম্মাদ আলী মোহন, বাগেরহাট ব্যুরো প্রধানঃ

মোল্লাহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স গত শনিবার করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এ আক্রান্ত সন্দেহে দুইজন ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছিলো, গতকাল দুপুরে খুমেক থেকে বেসরকারী ভাবে মুঠোফোনে তার ফলাফল জানতে পেরে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বিপ্লব কান্তি বিশ্বাস স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান যে উক্ত দুইজন ব্যক্তির নমুনা পরিক্ষার ফলাফল নেগেটিভ এসেছে,তারা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়নী।

অর্থাৎ অদ্য ২০ এপ্রিল ২০২০খ্রিঃ পর্যন্ত অত্র উপজেলায় কোন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী পাওয়া যায়নী।উল্লেখ্য মোল্লাহাটে সরকারী নির্দেশনা মোতাবেক শুরু থেকেই উপজেলা প্রশাসন ও আইন শৃংঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনীর কঠোর নজরারী রয়েছে। উপজেলাধীন হাট/বাজার গুলো বড় মাঠে বসিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বন্ধ করার জোরালো তৎপরতা রয়েছে। কোথাও একাধিক লোকের সমাগম দেখলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাফ্‌ফারা তাসনীন এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) অনিন্দ্য মন্ডল তাদের বুঝানো এবং পরিস্থিতি বিবেচনায় কোথাও কোথাও মোবাইল কোর্টে জরিমানা করছে।

থানা পুলিশের পাশাপাশি স্থানীয় প্রশাসনকে সহযোগীতা করার জন্য সেনাবাহিনীর টহল অব্যাহত রয়েছে। উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারন সস্পাদক শাহীনুল আলম ছানা জনপ্রতিনিধি ও সংগঠনের নেতা/ কর্মীদের নিয়ে বিভিন্ন কার্য্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছেন, সরকারী সহায়তায় চারহাজার দুইশত পরিবার এবং বাগেরহাট -১ আসনের মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দীন এঁর ব্যক্তিগত তহবীল থেকে প্রায় তিন হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা ও অন্যান্য স্বাস্থ্য সরঞ্জাম প্রদান করা হয়েছে।

সরকারিভাবে নিম্ন মধ্যবিত্তদের তালিকা করা হয়েছে, এছাড়া নতুন তালিকা চলমান রয়েছে, চাহিদা অনুযায়ী সকলেই খাদ্য সহায়তার আওতায় আসবে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে।

আসন্ন বোরো মৌসুমে ধান কাঁটার জন্য স্থানীয় শ্রমিকদের কাজে লাগানোর পরিকল্পনা রয়েছে উপজেলা প্রশাসনের, যাতে বেকার শ্রমিকরা কাজ করে জিবিকা নির্বাহ করতে পারে। সরকারি নির্দেশনা ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা,সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা,অতিজরুরী কাজ ছাড়া ঘরের বাহিরে না যাওয়া এসকল নিয়মগুলো মেনে চললে চারটি জেলার সিমান্তবর্তী ঝুকিপূর্ণ মোল্লাহাট উপজেলা হয়তোবা বৈশ্যিক এই মহামারীর ছোবল থেকে রক্ষা পেয়ে করোনা যুদ্ধে জয়ী হবে। এটিই আশা করছেন এলাকার স্বচেতন জনগন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে