বিমান শিডিউল বিপর্য।

0
257

OURBANGLANEWS DESK।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স শিডিউল বিপর্যয়ে পড়েছে।

মিয়ানমারে দুর্ঘটনায় একটি ড্যাশ-৮ উড়োজাহাজ বিকল হওয়ার জেরে রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাটি ৯ মে বৃহস্পতিবার তিনটি ফ্লাইট বাতিল করেছে।

এতে যাত্রীরা দুর্ভোগে পড়েন। আগামী তিন দিনে বিমানের আরও সাতটি ফ্লাইট বাতিল হবে।

জানা যায়, অভ্যন্তরীণ রুটগুলোতে প্রতিবছর ঈদের সময় বিমান অতিরিক্ত ফ্লাইট পরিচালনা করে।

ঢাকা থেকে সৈয়দপুর, রাজশাহী, বরিশাল, যশোর, সিলেট, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার রুটে তিনটি ড্যাশ-৮ উড়োজাহাজ এবং সিলেট, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার রুটে বড় বোয়িং ৭৮৭, ৭৭৭ ও ৭৩৭ উড়োজাহাজ ব্যবহার করা হয়।

উড়োজাহাজ নিয়ে সংকট তৈরি হওয়ায় এবার অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে সম্ভাব্য অতিরিক্ত ফ্লাইট পরিচালনা।

অবশ্য এই সপ্তাহেই বিমানের বহরে যুক্ত হওয়ার কথা কাতারের আলাফকো এভিয়েশন লিজ অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানির কাছ থেকে ছয় বছরের জন্য লিজ নেওয়া দুটি বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজ।

আলাফকো থেকে লিজ নেওয়া উড়োজাহাজ দুটির প্রতিটি সক্ষম ১৬২ জন যাত্রী ধারণে।

এর মধ্যে বিজনেস ক্লাস ১২টি ও ইকোনমিক আসন ১৫০টি।

বর্তমানে ১৩টি উড়োজাহাজ রয়েছে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী সংস্থা বিমানের বহরে।

এরমধ্যে দুটি বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার, চারটি বোয়িং ৭৭৭-৩০০, চারটি ৭৩৭-৮০০ ও তিনটি ড্যাশ-৮ উড়োজাহাজ।

তবে মেরামতের জন্য গ্রাউন্ডেড রয়েছে বহরে থাকা একটি বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজ এবং একটি ড্যাশ-৮ উড়োজাহাজ মিয়ানমারে সংঘটিত দুর্ঘটনায় বিকল হয়েছে।

বিমানের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও ক্যাপ্টেন ফারহাত হাসান জামিল এ ব্যাপারে বলেন, ‘আমাদের রিসোর্স খুবই লিমিটেড।

প্রতিটি উড়োজাহাজের নির্ধারিত শিডিউল আছে। এত স্বল্প সময়ে উড়োজাহাজ সংগ্রহ করাও সহজ নয়।

তারপরও সংকট নিরসনে আমরা কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসবো।’