বাড়ি ভাড়া মওকুফের পাশাপাশি খাদ্য সহায়তা ও ঈদ উপহার দিয়েছেন রুবেল হোসেন

0
216

বাড়ি ভাড়া মওকুফের পাশাপাশি খাদ্য সহায়তা ও ঈদ উপহার দিয়েছেন রুবেল হোসেন

করোনা মহামারীর এ পরিস্থিতিতে অসহায় মানুষদের পাশে দাড়িয়েছেন জাতীয় দলের পেসার মো. রুবেল হোসেন। বাগেরহাটের নিজ বাড়ির ১৬ টি পরিবারের বাড়ি ভাড়া মওকুফ করার পাশাপাশি ভাড়াটিয়াসহ এলাকার অসংখ্য মানুষকে খাদ্য সহায়তা দিয়ে সাহায্য করছেন।

জানা যায়, জাতীয় দলের পেসার রুবেল হোসেন মার্চ থেকেই তার বাড়ির ১৬ টি ভাড়াটিয়া পরিবারের থেকে ভাড়া নেয়নি। পাশাপাশি রুবেলের বাবা মুন্সি আবুবকর সিদ্দিক রুবেলের পক্ষ থেকে ভাড়াটিয়াদেরকে জানিয়ে দিয়েছেন করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত তাদের থেকে ভাড়া নেয়া হবে না। বাড়ী ভাড়া মকুফের পাশাপাশি দুই দফায় প্রায় ৮০০ পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী ও ৩০০ জন দুস্থ মানুষকে ঈদ উপহার দিয়েছেন এই পেসার।

বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় ৮ ই মার্চ। এরপর থেকে বাড়তে থাকে আক্রন্তের সংখ্যা। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সরকারের পক্ষ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ দেশের প্রায় সকল কর্মক্ষেত্র বন্ধ রাখা হয়। এর ফলে দেশের অনেক মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়ে। এসব অসহায় খেটে খাওয়া মানুষদের সাহায্যের জন্য সরকারের পাশাপাশি বেসরকারিভাবে নানা উদ্যোগ নেয়া হয়।

করোনা মহামারীর মধ্যে খেটে খাওয়া কর্মহীন মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য রুবেল গত মার্চ থেকে তার বাড়ীর ১৬ জন ভাড়াটিয়া পরিবারের কাছে থেকে ভাড়া নেয়া বন্ধ রেখেছেন। পাশাপাশি করোনা পরস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত ভাড়া না নেয়ার কথা জানিয়েছেন। এছাড়া তিন দফায় বাগেরহাটের অসংখ্য মানুষকে খাদ্য সামগ্রী দিয়ে সাহায্য করেছেন। পাশাপাশি জানিয়েছেন, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এই সহায়তা অব্যাহত থাকবে।

জাতীয় দলের এই পেসার প্রথমবারে বাগেরহাট পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের ৪৫০ টি পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন। এরপর দ্বিতীয়বারে নিজ এলাকার ৩৫০ টি পরিবারকে মধ্যে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন। এবং আজকে বাগেরহাট এলাকার ৩০০ জন দুস্থ মানুষকে ঈদ উপহার দিয়েছেন।

সমাজের দুস্থ-অসহায় মানুষদের ঈদের দিনটা রঙ্গিন করতে রুবেল ৩০০ জন দুস্থ মানুষকে ঈদ উপহার দিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি মনে করেন সমাজের বিত্তশালীরা চাইলে সমাজের দুস্থ মানুষদের ঈদের দিনটা রঙ্গিন হতে পারে।

রুবেল তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে এ সংক্রান্ত একটি পোস্টে লিখেছেন, “করোনায় সবার মাঝে একটা অদৃশ্য আতঙ্ক কাজ করছে। মানসিক অবস্থা ভালো নেই কারও। এর মাঝে আমাদের প্রিয় উৎসব ঈদ সামনে। বরাবর আমরা যেভাবে ঈদ উদযাপন করি এবার তেমনটা হচ্ছে না।

বিশেষ করে গরীব দুস্থ মানুষের জন্য ব্যাপারটা আরো কঠিন। করোনার কালো অধ্যায়ে তাই সিদ্ধান্ত নিলাম আমি আমার বাগেরহাটে ৩০০ টা দুস্থ মানুষদের ঈদের দিনটা রঙিন করতে ঈদ উপহার দিবো। আমার বিশ্বাস অনেক বিত্তশালীরা সমাজের দুস্থ মানুষদের জন্য ঈদের দিনটা রাঙাতে চাইবেন।“

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে