বাংলাদেশীরা বিয়ে করতে পারবেন সৌদি নারীদের।

0
295

OURBANGLANEWS DESK।

সৌদি আরবে নারীদের সংখ্যা পুরুষের তুলনায় বেশী হওয়ায় দেশের বহু নারী অবিবাহিত থেকে যায়।

এই সমস্যা সমাধানে সৌদি সরকার ভিনদেশের ছেলেদের বিয়ের জন্য আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন। এই সুযোগে পাবেন বাংলাদেশিরাও।

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের দেয়া তথ্যে জানা যায়, সৌদি সরকার, সৌদি নারীদের বিদেশীদের বিয়ে করার সুযোগ দিচ্ছেন।

এমনকি রোজগারেরও সুযোগ থাকছে। এই সুবিধা পেতে অগ্রিম রেজিস্ট্রি করাতে হবে ‘স্পেশাল এক্সপ্যাক্ট’ সিস্টেমে। রেজিস্ট্রির তারা ভোগ করতে পারবেন পেনশন-সহ বেতনের সুবিধাও।

তবে সৌদি সরকার বিদেশিদের বিয়ে করার ক্ষেত্রে বেঁধে দিয়েছে নতুন শর্ত। তাদের মেনে চলতে হবে নতুন কিছু নিয়ম।

গালফ নিউজ, মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়, বিয়ের ক্ষেত্রে একজন সৌদি পুরুষ ও একজন বিদেশি স্ত্রীর মধ্যে অনুমোদিত বয়সের পার্থক্য হলো অর্ধেক।

তবে সৌদি নারীদের মধ্যে যারা বিদেশিদের বিয়ে করতে চায় তাদের জন্য বয়স সর্বোচ্চ পাঁচ বছর কমানো হয়েছে। এখন ২৫ বছর বয়সী সৌদি নারীরাও বিদেশি পুরুষদের বিয়ে করতে পারবেন। আগে এই সীমা ছিল ৩০ বছর বয়স।

২০১৬ সালের বিদেশিদের সঙ্গে সৌদি নাগরিকদের বিয়ের ক্ষেত্রে করা তালিকায় সংশোধনী আনা হয়েছে ১৭টি পয়েন্ট।

এর আগে ৩০ বছর পার্থক্য থাকলে ও নতুন সংশোধনীতে বলা হয়েছে দম্পতিদের বয়সের পার্থক্য ১৫ বছরের বেশি হওয়া যাবে না।

সৌদি ডেইলির খবরে বলা হয়, ৫০ বছরের বেশি বয়সের সৌদি নারীরা বিদেশি স্বামী নিতে পারবেন না। এর আগে যা ছিল সর্বোচ্চ ৫৫ বছর।

সৌদি আরবের আইন মন্ত্রণালয়ের মতে, প্রায় ৭ লাখ শতকরা ১০ ভাগ সৌদি নারীরা বিদেশিদের বিয়ে করেন। তবে কতজন সৌদি পুরুষ বিদেশিদের বিয়ে করেন তার প্রকৃত তথ্য জানা যায়নি।

ডিভোর্সী পাত্রী ববিবাহ করতে চাইলে বিচ্ছেদের পর অপেক্ষা করতে হবে কমপক্ষে দুই বছর। তার পর তিনি বিবাহের আবেদন করতে পারবেন।

ইতিমধ্যে বিবাহিত কোন বিদেশি পুরুষ কোনো সৌদি নারীদের বিয়ে করতে পারবেন না।

সৌদি নারীকে যদি কোনো বিদেশি পুরুষ বিয়ে করতে চায় তবে তার নিজ দেশ এবং সৌদিতে তিনি কোন অপরাধের সঙ্গে জড়িত না এমন প্রমাণ দিতে হবে।

তাকে প্রমাণ দিতে হবে তিনি সংক্রামক বা জেনেটিক রোগে ভুগছেন কি না। সে অন্য কোনো দেশের সামরিক সদস্য হতে পারবে না।

তাকে সৌদি আরবে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞাদের তালিকায়ও থাকা যাবে না। এ ছাড়া বিদেশি স্বামীকে আয় করতে হবে কমপক্ষে পাঁচ হাজার সৌদি রিয়াল এবং থাকতে হবে একটি বৈধ বাসস্থানের অনুমতি।

সৌদি সরকারের ২০১৪ সালে জারি করা নিষেধাজ্ঞা অনুযায়ী বাংলাদেশসহ চারটি দেশের নারীদের বিয়ে করতে পারবে না সৌদি আরবের পুরুষরা। অন্য তিনটি দেশ হলো- পাকিস্তান, চাদ ও মিয়ানমার।

সৌদি আরবের জনসংখ্যার এক তৃতীয়াংশ প্রায় তিন কোটি ২০ লাখ লোক বিদেশি, যারা কাজের জন্য এই দেশটিতে এসেছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে