বশেমুরবিপ্রবির ছাত্র মজিবুর বহিষ্কার 

0
167
ছবি: সংগ্রহীত

বশেমুরবিপ্রবির ছাত্র মজিবুর বহিষ্কার 

গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) এসএম অলি উল্লাহ নামের এক ছাত্রকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। সে ইলেকট্রনিকস অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী।

বশেমুরবিপ্রবির অর্থনীতি বিভাগের সভাপতি সহকারী অধ্যাপক খসরুল আলম কে মুঠোফোনে হুমকি দেওয়ার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

আজ (মঙ্গলবার) বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মো. নুরউদ্দিন আহমেদ স্বাক্ষরিত এক আদেশে এ সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ’১২ ই ডিসেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের এক শিক্ষার্থীর বাবা সড়ক দুর্ঘটনায় শেরপুরে মারা যান। ওই শিক্ষার্থীর সঙ্গে তাঁর কয়েকজন সহপাঠী শেরপুরে যেতে চান। অর্থনীতি বিভাগের সভাপতি খসরুল আলমকে একটি গাড়ির ব্যবস্থা করার কথা বলেন শিক্ষার্থীরা। গাড়ি দেওয়া যাবে কিনা, বিষয়টি তাঁর জানা নেই বলে তিনি মন্তব্য করেন। তখন অলি উল্লাহ অর্থনীতি বিভাগের সভাপতিকে মুঠোফোনে কল করেন’।
এ ব্যাপারে অর্থনীতি বিভাগের সভাপতি খসরুল আলম বলেন, ‘আমার বিভাগের শিক্ষার্থীর বাবা নিহত হয়েছেন। আমরা দুঃখপ্রকাশ করেছি। কয়েকজন শিক্ষার্থী আমাকে মোবাইল ফোনে গাড়ির কথা বললে আমি তাদের বলি, আমার গাড়ি দেওয়ার কোনো এখতিয়ার নেই। আমি শুধু সুপারিশ করতে পারি। এরপর অলি উল্লাহ আমার ফোনে কল করে গালাগাল করতে থাকে। আমাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। ওই সময় আমি উপাচার্য স্যারের কক্ষে ছিলাম। আমি লাউড স্পিকারে ওই শিক্ষার্থীর কথা উপস্থিত সবাইকে শোনাই’।
শিক্ষার্থী এসএম অলি উল্লাহ বলেন, ‘শেরপুরের নকলা উপজেলার মেহেদী হাসান অর্থনীতি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। সে আমার পরিচিত। ওর বাবা ট্রাক চাপায় নিহত হন। সে আমাকে ডেকেছিল তাঁর সঙ্গে বাড়ি যাওয়ার জন্য। খসরুল আলম স্যার বারবার না করছিলেন। এরপর প্রক্টর ও ভিসি স্যারকে জানালে তাঁরা বলেন, বিভাগের সভাপতির কাছে যেতে। খসরুল আলম স্যারের সঙ্গে আমার কথা-কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে আমি ক্ষমাও চেয়েছি। তারপরও আমাকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হলো’।
বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. শাহজাহান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর বাবা নিহত হয়েছেন। আমাদের কাছে গাড়ি চেয়েছে, আমরা গাড়ি দিয়েছি। অর্থনীতি বিভাগের সভাপতি খসরুল আলম যখন আমার কাছে এসেছিলেন, তখন অলি উল্লাহ ফোনে কল করে গালাগাল করে। শিক্ষককে হুমকি দেওয়ার অপরাধে তাঁর বিরুদ্ধে এ সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা কমিটি’।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে