ড্রোনে পাঠানো হবে প্রতিস্থাপনের জন্য অঙ্গ।

0
350

OURBANGLANEWS DESK।

বর্তমানে অনেক সহজ হয়েছে অঙ্গ প্রতিস্থাপনের প্রক্রিয়া।

প্রক্রিয়া সহজ হওয়ার ফলে সম্ভব হচ্ছে মস্তিষ্ক অকার্যকর হওয়া রোগীর অঙ্গে নতুন করে জীবন শুরুর।

এদিকে এখন স্বাভাবিক ঘটনা হয়ে গেছে এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে অঙ্গ পৌঁছে দিতে গ্রিন করিডর তৈরি করা।

তবে এর আগে শোনা যায়নি ড্রোনের সাহায্যে প্রতিস্থাপন যোগ্য অঙ্গ পরিবহণের ঘটনা। সেই ঘটনা এবার ঘটেছে।

ড্রোন ব্যবহার করা হয়েছে এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতালে থাকা রোগীর শরীরে প্রতিস্থাপনের জন্য কিডনি পাঠাতে।

যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব মেরিল্যান্ড মেডিক্যাল সেন্টারে ঘটনাটি ঘটেছে। তারাই ১৯ এপ্রিল প্রতিস্থাপন যোগ্য অঙ্গ ড্রোনে করে পরিবহণ করেছে।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, এতে অনেকটাই কম সময় লেগেছে। একই সঙ্গে ওই অঙ্গ প্রতিস্থাপন করা গেছে অনেক বেশি সুরক্ষিতভাবে।

ওই কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয় ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৪৪ বছর বয়সী এক নারীর শরীরে।

জানানো হয়েছে সফলভাবে অস্ত্রোপচারে সার্জন থেকে শুরু করে প্রকৌশলী, ফেডারেল অ্যাভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, চিকিৎসক, নার্স, পাইলটসহ আরো অনেকের সম্মিলিত প্রচেষ্টা রয়েছে।

প্রতিস্থাপন যোগ্য অঙ্গ পরিবহণে যতটা সময় বিমান কিংবা হেলিকপ্টারে লাগে, ড্রোনের ক্ষেত্রে তার চেয়ে কম সময় লেগেছে।

এমনকি কম সময় লেগেছে গ্রিন করিডরের থেকেও। সে কারণে চিকিৎসকদের বিশ্বাস আগামিতে চিকিৎসা ব্যবস্থায় এই ব্যবস্থা নতুন দিগন্তের সূচনা করবে।