জিন তাড়ানোর ছলে ধর্ষণের চেষ্টা।

0
266

OURBANGLANEWS DESK।

টাঙ্গাইলের সখীপুরে মসজিদের মুয়াজ্জিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে জিন তাড়ানোর কথা বলে, তিনি পঞ্চম শ্রেণির, (১০) এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন।

ওই শিশুটির মা এ ঘটনায় বাদী হয়ে ১৭ জুন সোমবার, দুপুরে অভিযুক্ত মুয়াজ্জিন রুহুল আমীনের (৩০) বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

উপজেলার কালিয়া ইউনিয়নে ৬নং ওয়ার্ডের কুতুবপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে।

উপজেলার কুতুবপুর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে অভিযুক্ত রুহুল আমীন মুয়াজ্জিন হিসেবে কর্মরত।

ময়মনসিংহ জেলায় ফুলবাড়িয়া উপজেলা সদরে তার বাড়ি।

মামলার বিবরণ এবং মেয়েটির পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ১২ জুন গত বৃহস্পতিবার, দুপুরে মেয়েটির বাড়িতে আসেন ওই মুয়াজ্জিন।

এ সময় মেয়েটির পরিবারকে জানান ওই মেয়েটিকে জিনে ধরেছে এবং ঝাড়ফুঁক দিয়ে জিন তাঁর জিন তাড়াতে হবে।

মেয়েটিকে পরে আলাদা করে একটি ঘরে নিয়ে তাকে ঝাড়ফুঁক দেওয়ার ছলে, তার চোখে-মুখে সরিষার তেল ঢেলে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।

এ সময় বাড়ির লোকজন এবং স্থানীয়রা মেয়েটির চিৎকার শুনে এগিয়ে আসেন।

তখন ওই মুয়াজ্জিন দ্রুত চলে যাওয়ার চেষ্টা করলে, তাকে আটকে স্থানীয়রা গণপিটুনি দেয়।

স্থানীয় মাতাব্বরদের সহযোগিতায় মুয়াজ্জিন পালিয়ে যায়।

মেয়েটির মা বলেন, ‘ওই মুয়াজ্জিন আমার মেয়েকে জিন তাড়ানোর কথা বলে ধর্ষণের চেষ্টা করে।

এলাকার মাতব্বররা বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য পাঁয়তারা করছে।

বিষয়টি নিয়ে কয়েকবার বৈঠকে বসে তারা। এজন্য মামলা করতে দেরি হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, অভিযুক্ত মুয়াজ্জিন এলাকায় পানি পড়া, ঝাড়ফুঁক দেয়াসহ বিভিন্ন রকম কবিরাজি চিকিৎসাও দিতেন।

সখীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমির হোসেন বলেন, ‘এ ঘটনায় মেয়েটির মা বাদী হয়ে মামলা করেছেন।

অভিযুক্ত রুহুল আমীনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।’