ছাত্রী যৌন হয়রানির চেষ্টা মিনিবাসে, রক্ষা পেলেন লাফ দিয়ে।

0
224

OURBANGLANEWS DESK।

অভিযোগ উঠেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে চলন্ত মিনিবাসে যৌন হয়রানির চেষ্টা করেছে চালক ও হেলপার।

একপর্যায়ে ওই নারী রক্ষা পান চলন্ত গাড়ি থেকে লাফ দিয়ে। কোতোয়ালি থানায় এ ঘটনায় মামলা করলেও অভিযুক্তদের পুলিশ এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ছাত্রী যৌন হয়রানির অভিযোগ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম-ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন ১১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার রাতে।

জানান তিনি, বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস শেষে বৃহস্পতিবার বিকেলে সহপাঠীদের সঙ্গে হিউম্যান হলারে করে ফিরছিলেন শহরে।

সবাই নগরীর নিউমার্কেট এলাকায় আসার পর নেমে যায়। কিন্তু গাড়ির চালক ও সহকারী বাধা দেয় ওই ছাত্রী নামতে গেলে।

গাড়িটি তারা সামনে নিয়ে যায় জোরে টান দিয়ে। এমনকি মেয়েটিকে আটকানোর চেষ্টা করে ওড়না দিয়ে পেঁচিয়ে।

পরে তিনি রক্ষা পান চলন্ত গাড়ি থেকে স্টেশন রোড এলাকায় লাফ দিয়ে।

বলেন ভুক্তভোগী মেয়ে, কনট্রাকটরকে যখন বললাম বাস থেকে নামার জন্য, তখন তিনি বললেন নামিয়ে দেবে সাইট করে।

উনি অন্য রাস্তায় নিয়ে যাচ্ছিলো আমাকে না নামিয়ে। চিল্লাই যখন বলছি নামিয়ে দেন আমকে আমার ওড়না উনি পেঁচিয়ে ধরে।

তখন বাঁচার জন্য আমি উনার হাতে মোবাইল দিয়ে বাড়ি দেই, আমার হাত উনি ছেড়ে দিলে আমি লাফ দেই চলন্ত বাস থেকে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের বিষয়টি নজরে আসে ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমে। পরে পুলিশ যোগাযোগ করে ভুক্তভোগী নারীর সঙ্গে।

ওই ছাত্রী অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা আশ্বাস দিলে মামলা করেন।

মোহাম্মদ মহসিন সিএমপি কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন, আমি ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেখে গুরুত্ব দিয়ে খুঁজে বের করছি ভিক্টিমকে ও দোষী ব্যক্তিদের পরিচয়। বর্ণনা দিয়েছে ছোট একটি গাড়ি এবং ড্রাইভারের।

মেহেদী হাসান সিএমপির উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) বলেন, জানিয়েছি পরিবহন শ্রমিক নেতাদের, জানিয়েছি পুলিশের গোয়েন্দা সংস্থাকে।

যানবাহন হচ্ছে এখন আমাদের টার্গেট, খুঁজে বের করা হবে ড্রাইভার এবং হেলপারকে।

এদিকে, কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ওই ছাত্রীর সহপাঠীরা গ্রেফতার করে অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনা না হলে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে