ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে আটক দুই কিশোর।

0
440

OURBANGLANEWS DESK।

অভিযোগ পাওয়া গেছে কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে।

উপজেলার চণ্ডিপাশা ইউনিয়নের ষাইটকাহন গ্রামে গত রবিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় শিশুর মা বাদী হয়ে সোমবার রাতে দুজনকে অভিযুক্ত করে পাকুন্দিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ অভিযুক্ত দুই কিশোরকে রাতেই আটক করে, মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে পাঠায়।

আটক দুই কিশোর কাওসার (১৪) উপজেলার ষাইটকাহন গ্রামের রেনু মিয়ার ছেলে এবং ফেরদৌস (১৬) একই গ্রামের সেলিম মিয়ার ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, রবিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে শিশুটি বাড়ির সামনের একটি দোকানে বিস্কুট কিনতে যায়।

এ সময় ফেরদৌস ও কাওসার ফেরদৌসের মা শিশুটিকে ডাকছে বলে শিশুটিকে তারা ফেরদৌসের বাড়িতে নিয়ে যায়।

বাড়ির একটি হাফবিল্ডিং ঘরে ঢুকিয়ে দরজা ভেতর থেকে লাগিয়ে দেয়। এ সময় ফেরদৌস জোরপূর্বক শিশুটিকে ধর্ষণ করে।

শিশুটি একপর্যায়ে চিৎকার শুরু করে। চিৎকার শুনে ফেরদৌসের চাচাতো ভাই শাহিন ও আশপাশের কয়েকজন এগিয়ে আসে।

তখন শিশুটিকে ঘরের বাইরে বের করে দিয়ে ফেরদৌস ও কাওসার দৌড়ে পালিয়ে যায়।

বাদী এজাহারে উল্লেখ করেছেট, স্বামীসহ পরিবারের লোকজনের সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিতে মামলা দায়ের করতে বিলম্ব হয়েছে।

পাকুন্দিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মফিজুর রহমান বলেন,

“শিশুটির মা বাদী হয়ে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে দুজনকে অভিযুক্ত করে মামলা করেছেন।

অভিযুক্ত দুই কিশোরকে আটক করে মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

এ ছাড়া ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ভিকটিমকে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট কিশোরগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।”