খন্ডকালীন চাকরীর সুযোগ বই মেলায়।

0
266

ইফফাত জাহান, OURBANGLANEWS DESK।


আর বেশিদিন নয়, আগামী মাস থেকেই শুরু হতে যাচ্ছে অমর একুশের গ্রন্থমেলা। সকল প্রকার বই প্রেমিদের এটি একটি মিলনমেলা বলা যায়। ঠিক এক বছর পর পর প্রাণের এই মেলার আগমন ঘটে।

বিভিন্ন লেখক, পাঠক, ক্রেতা এবং প্রকাশকদের সমাগম থাকে এই মেলায়। বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান জুড়ে থাকে মেলাটির অবস্থান। বেশখানিক স্টল থাকে বইমেলায় এবং এই স্টলগুলোতে কিছুসংখ্যক লোক নিয়োগ করা হয়ে থাকে।

ফলে, প্রতিবার বইমেলা উপলক্ষে খন্ডকালীন চাকরীর সুযোগ আসে যা তরুন-তরুনীদের জন্য আলাদা আয়ের পথ করে দেয়। বইমেলা উপলক্ষে স্টলে স্টলে বিভিন্ন প্রকাশনী থেকে খন্ডকালীন চাকরীতে নিযুক্ত করা হয়।

তাদের নিয়মিত কর্মীর পাশাপাশি মেলার বাড়তি চাপ সামাল দিতে– বিক্রয়কর্মী, ক্যাশিয়ার, জনসংযোগ কর্মকর্তা পদে জনবল নিয়োগ করা হয়ে থাকে। অনার্স পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রী এবং পূর্বাভিজ্ঞতা আছে এমন লোকদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয়ে থাকে। ফেসবুক কিংবা সরাসরি প্রকাশনীগুলোর সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে এসকল চাকরীর তথ্য সংগ্রহ করা যায়। আগ্রহীদের শিক্ষাগত যোগ্যতার পাশিপাশি থাকতে হয় সুন্দর বাচনভঙ্গি। যাদের বইপত্র, লেখক, কবি এবং প্রকাশনা সংস্থা সম্বন্ধে ভালো ধারণা থাকে, তারাই এই চাকরীর জন্য ফিট বলে বিবেচিত হয়। বইমেলা শুরুর সময়সূচি দুপুর ৩টা, যা চলে রাত ৮টা নাগাদ। এছাড়া, ছুটির দিনগুলোয় সকাল ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলে। ২১শে ফেব্রুয়ারীর দিন থাকে ব্যাতিক্রম সময়সূচি।

মেলা চলাকালীন পুরো সময় জুড়েই কর্মীদের স্টলের ভেতর অবস্থান করতে হয়। ক্রেতাদের নিকট বই প্রদর্শন, সুন্দর আচরনের সাথে ক্রেতাদের পছন্দেরও রাখতে হয় বাড়তি খেয়াল।

তরুন-তরুনীদের জন্য কিঞ্চিৎ আয়ের পাশাপাশি বইমেলা কখনো কখনো স্থায়ী চাকরীর সুযোগও এনে দেয়। এছাড়া, দেয় ভালো স্মৃতি ও অভিজ্ঞতা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে