করোনায় আক্রান্ত বিশ্ব ফুটবলও, বাতিল হতে পারে সব লীগের চলতি মৌসুম

0
219

করোনায় আক্রান্ত বিশ্বফুটবলও, বাতিল হতে পারে সব লীগের চলতি মৌসুম

বশীর আহম্মেদ , কালের সমাচার।

বিশ্বজুড়ে চলছে আতঙ্ক। বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত প্রায় তেরো লাখ মানুষ, এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৭০ হাজার মানুষ।
বিশ্ব ফুটবলও আক্রান্ত হয়েছে এ ভাইরাসে, বন্ধ রয়েছে প্রায় সব দেশের ফুটবল লীগ। যেই ইউরোপকে ফুটবলের আঁতুড়ঘর বলা হয়ে থাকে সেই ইউরোপে আক্রান্তের সংখ্যা সবচে বেশি। ফলে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে গিয়েছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগ,স্প্যানিশ লা লীগা, ইতালিয়ান সিরি আ সহ ইউরোপে ফুটবলের সবচে মর্যাদার আসর ইউয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগও।
করোনা ভাইরাসের তান্ডব যখন ইউরোপ জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে নি তখন লীগ চললেও নিষিদ্ধ ছিল কোন প্রকার দর্শক।
পরিস্থিতি খারাপ হয় চ্যাম্পিয়ন্স লীগের একটি ম্যাচকে ঘিরে যেখানে প্রায় ৭০ হাজার দর্শক একসাথে জড়ো হয় ইতালির একটি স্টেডিয়ামে। তখনো কেউ জানত না এভাবে দাবানলের মত ছড়িয়ে পড়বে এই ভাইরাস। অনেকে ইতালীতে এই ভাইরাস ছড়িয়ে যাবার পিছনে এই ম্যাচকে দায়ী করছেন। যখন করোনা ছড়িয়ে পড়ছিল, তখন দর্শক সমাগম নিষদ্ধ করে ফাঁকা স্টেডিয়ামে খেলা চলছিল। তবে কিছুদিনের মধ্যেই পরিস্থিতি খারাপের দিকে মোড় নিলে বন্ধ করে দেয়া হয় ইউরোপের প্রায় সব লীগ।
ইউয়েফা(ইউনিয়ন অফ ইউরোপিয়ান ফুটবল এসোসিয়েশনস) বলছে বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের তান্ডব না থামলে আগস্টের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন্স লীগ শেষ করবে না তারা, এমনকি তারা এই মৌসুম শেষ করা নিয়ে শঙ্কায় আছে।
ইউয়েফা প্রধান আলেকজান্ডার কেফেরিন বলছেন – “আমরা এই ভয়ানক অবস্থার উন্নতির জন্য অপেক্ষা করছি, প্রধানত ইউরোপে। দর্শক ছাড়া ফুটবল আসলে একটা ভিন্ন পরিস্থিতি। তবে খেলা না হওয়ার চেয়ে বন্ধ স্টেডিয়ামে খেলা হওয়াটা ভালো, এটা মানুষ চায় এবং ভক্তদের শক্তি যোগাবে। তবে সরকার বা কতৃপক্ষ না চাইলে আমরা খেলব না”

বিশ্বের এই অবস্থায় ল-লীগার মৌসুম শেষ করে দিতে বলছেন সাবেক বার্সেলোনার খেলোয়ার স্টোইকভ।
অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ থাকা এসব লীগ কবে চালু হবে কেউ বলতে পারছে না। সাধারণত মে/জুলাইতে লীগগুলো শেষ হয়ে যায় এবং আগস্টে চ্যাম্পিয়ন্স লীগ দিয়ে মৌসুম শেষ হয়ে যায়। তবে এবার সে শিডিউল ভেঙে পড়ছে নিশ্চিতভাবেই। আর পরিস্তিতি যদি স্বাভাবিক না হয় সেক্ষেত্রে এই মৌসুম শেষ করে দিতে পারে লীগগুলোর কতৃপক্ষ।

লীগগুলো যখন অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রয়েছে তখন আর্থিক ক্ষতির মুখে প্রায় সব ক্লাব। এতে সবচে আক্রান্ত তুলনামূলক ছোট দলগুলো। ইংলিশ ক্লাব বার্নলির প্রধান বলছেন আগস্টের মধ্যে তাদের টাকা শেষ হয়ে যাবে। এমন পরিস্থিতি অনেক ছোট ক্লাবেরই, বড় ক্লাবগুলোও ভুগছে।

তবে এমন পরিস্থিতিতে এগিয়ে এসেছেন অনেকে। অনেক ফুটবলারই এগিয়ে আসছেন মানবকল্যাণে। স্প্যানিশ ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ তাদের ক্লাবের হোম ভেন্যু সেন্টিয়াগো বার্নাবুকে ব্যবহার করতে দিচ্ছে ত্রান সামগ্রী, ঔষধ সহ যাবতীয় নিরাপত্তা উপকরন রাখার স্থান হিসেবে, নিশ্চিত করেছে রিয়াল মাদ্রিদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট।
ফুটবলে বিশেষণ হিসেবে প্রায়ই বলা হত ফুটবল’জ্বরে’ কাপছে বিশ্ব। তবে কে জানত বিশেষন হয়ে যাবে সত্যি! আবারো রোনালদো, মেসি কিংবা ৯৩ মিনিটে সার্জিও রামোসের গোলের জন্য অপেক্ষা করছে বিশ্ব।
সুদিন আসবেই!

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে