এক মেয়েকে হত্যা, স্ত্রী ও ২ মেয়েকে জখম।

0
158

OURBANGLANEWS DESK।

অভিযোগ উঠেছে নাজিমুল ইসলাম (৩৫) নামের পঞ্চগড়ে এক ব্যক্তি হত্যা করেছেন ছয় মাসের মেয়েকে।

স্ত্রী ও বাকি দুই মেয়ে তাঁর ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত হয়েছে। এ ঘটনা ঘটে জেলার সদর উপজেলার পূর্বজয়ধরভাঙ্গা এলাকায় সোমবার ০১ এপ্রিল সকালে। নাজিমুল ঘটনার পর থেকেই পলাতক আছেন।

নাজিমুল ইসলামের স্ত্রী রশিদা আক্তার (৩০), তাঁর বড় মেয়ে নাজিরা আক্তার (১০) ও মেজো মেয়ে রিয়া মনি (৫) গুরুতর আহত হয়েছেন।

ওই এলাকার লোকজন সোমবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে বাড়ি থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় গৃহবধূ ও তাঁর দুই মেয়েকে পঞ্চগড় সদর হাসপাতালে নিয়ে যান উদ্ধার করে এবং খবর দেন পুলিশে।

পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাদের তিনজনকে স্থানান্তর করা হয়েছে।

মো. আইনুল হক চাকলাহাট ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য বলেন, প্রায়ই ঝগড়া-বিবাদের ঘটনা ঘটত স্বামী নাজিমুলের সঙ্গে স্ত্রী রশিদা বেগমের।

ধারণা করা হচ্ছে এসব কারণেই সোমবার সকালে স্ত্রী ও বড় দুই মেয়েকে কুপিয়ে তিনি পালিয়ে যান।আর ধারণা করা হচ্ছে ছয় মাস বয়সী ছোট মেয়ে রত্না আক্তারকে হত্যা করেছেন আছাড় মেরে বা শ্বাসরোধ করে।

রশিদুল ইসলাম নাজিমুল ইসলামের শ্বশুরের ভাষ্য, মেয়ে রশিদার বিয়ে দিই প্রায় ১১/১২ বছর আগে। মেয়ের ওপর নির্যাতন করতেন নাজিমুল। তিনি বিচার চান জামাতার এমন কর্মকাণ্ডের।

মনসুর আলম পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের চিকিৎসক বলেন, জরুরি বিভাগে চারজন রোগী আসেন সকাল পৌনে ১০টার দিকে।

এর মধ্যে মৃত ছিল ৬ মাসের শিশুটি। বাকি তিনজনের শরীরের আঘাতের চিহ্ন ছিল বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের। ময়নাতদন্তে জানা যাবে শিশুটির মৃত্যুর প্রকৃত কারণ।

নাঈমুল হাসান পঞ্চগড়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে খবর পেয়ে। অনুসন্ধান চলছে ঘটনার কারণ। আটকের চেষ্টা চলছে অভিযুক্ত স্বামী নাজিমুলকে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে