আজ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস।

0
205

OURBANGLANEWS DESK।

২৬ শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। ১৯৭২ সালের ২২ জানুয়ারি ২৬শে মার্চকে বাংলাদেশের

স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ঘোষণা করে একটি প্রঙ্গাপন জারি করা হয়। দিনটি সরকারী ছুটির দিন। নানা আয়োজনে পালন করা হয় দিনটি।

১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ মধ্য রাতে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর হাতে গ্রেফতার হওয়ার আগে শেখ মুজিবুর রহমান রাত ১২ টার পর পর

( অর্থাৎ ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে) বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা পত্রে স্বাক্ষর করেন। পরে তা প্রচারের জন্য চট্টগ্রাম ই.পি.আর ট্রান্সমিটারে পাঠানো হয়।

ঘোষণাটি: “এটাই হয়ত আমার শেষ বার্তা, আজ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন। আমি বাংলাদেশের মানুষকে আহ্বান জানাই, আপনারা যেখানেই থাকুন,

আপনাদের সর্বস্ব দিয়ে দখলদার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে শেষে পর্যন্ত প্রতিরোধ চালিয়ে যান। বাংলাদেশের মাটি থেকে সর্বশেষ পাকিস্তানি সৈন্যটিকে উত্খাত করা এবং চূড়ান্ত বিজয় অর্জনের আগ পর্যন্ত আপনাদের যুদ্ধ অব্যাহত থাকুক।”

পরে ২৭ মার্চ মেজর জিয়াউর রহমান, পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর অফিসার চট্টগ্রামের কালীঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন।

এই ঘোষণার ফলে বাংলার মাটিতে সূচনা হয় রক্তক্ষয়ী স্বাধীনতা যুদ্ধের, যা দীর্ঘ নয় মাস স্থায়ী হয়। এবং আমরা পাই একটি স্বাধীন রাষ্ট্র।

বর্ণাঢ্য ভাবে উদযাপিত করা হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস। ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিনের সূচনা হয়।

দিনটির উদযাপন শুরু হয় জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে। সূর্যদয়ের সাথে সাথে সরকারি, আধা-সরকারি, ব্যক্তিমালিকানাধীন ভবন সমূহ উত্তোলন করা হয় জাতীয় পতাকা।

দিবসটির সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সড়ক সমূহ জাতীয় ও বিভিন্ন রঙের পতাকা সজ্জিত থাকে। পত্রিকাগুলো বের করে বিশেষ ক্রোড়পত্র।

বেতার ও টেলিভিশন চ্যানেল গুলো বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র ছাত্রীরা স্টেডিয়ামে শরীর চর্চা, কুচকাওয়াজ ও ডিস্পেলে পর্দশন করে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে