অপরাজিতার ‘পুরুষাতঙ্ক’ ঘুরছে দেশে-বিদেশে।

0
373

OURBANGLANEWS DESK।

নারীরা পুরুষের সামনে গেলে মনের মধ্যে কাজ করে একটি অজানা ভয়। নারী নির্মাতা অপরাজিতা সংগীতা তৈরী করেছেন ‘পুরুষাতঙ্ক’ নামের একটি শর্টফিল্ম বা স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমা, যা‌ তৈরী হয়েছে মনের এই ভয়কে কেন্দ্র করে।

এটি নির্মাণ শেষ হয় গত বছরের মাঝামাঝিতে। এরপর থেকে তা প্রদর্শিত হচ্ছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও দেশীয় সিনেমা উৎসবে।

এই শর্টফিল্মটি একক উদ্যোগ এবং বাজেটে নির্মিত নারী নির্মাতা অপরাজিতার প্রথম শর্টফিল্ম।তাঁর ভাষায়, পুরুষাতঙ্ক এর গল্প হচ্ছে নারী-পুরুষের একটি মানবিক সহানুভূতিশীল ও সমতার সমাজের দাবি।

রিভোল্ট (দ্রোহ) নামের আরেকটি সিনেমা নির্মাণাধীন রয়েছে এই নির্মাতার। নারী নির্যাতনকে কেন্দ্র করে এগিয়েছে এই শর্টফিল্মটির কাহিনিও।

অপরাজিতা জানান, ইংল্যান্ডে বৈশ্বিক নেটওয়ার্ক লিফট অব সেশনে এবং ফার্স্ট টাইম ফিল্ম মেকার সেশনে ‘পুরুষাতঙ্ক’ দেখানো হয় দুই সপ্তাহ।

৮ থেকে ১০টি ফেস্টিভ্যাল (শিলিগুড়িতে একবারসহ) প্রদর্শিত হয়েছে। ২৯ মার্চ পর্দশিত হবে কলকাতায় সাউথ এশিয়ান ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল এবং ৩১ মার্চ পর্যন্ত হবে সিলেট ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে।

প্রখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা তানভীর মোকাম্মেলের কাছে চলচ্চিত্র নির্মাণে হাতে–কলমে কাজ শিখেছেন ইতিহাস নিয়ে পড়াশোনা করা অপরাজিতা।

বিভিন্ন জায়গা থেকে নিয়েছেন প্রশিক্ষণ। পেশায় অপরাজিতা একজন ফ্রিল্যান্স ফটোগ্রাফার। বাবা বেঁচে নেই। তাঁর সংসার মা আর তিন বোন নিয়ে।

অপরাজিতা বললেন, নারী নির্মাতা বা ফটোগ্রাফার হিসেবে কাজের ক্ষেত্রে নারী বলেই যোগ্যতা প্রমাণের জন্য বাড়তি পরিশ্রম করতে হয়।

অপরাজিতার মতে, রাস্তায় মানববন্ধনে দাঁড়িয়ে বা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে লিখে, কথা বলার চেয়ে একটি বড় মাধ্যম হিসেবে কাজ করে চলচ্চিত্র। তাই পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ অপরাজিতার ভবিষ্যৎ ইচ্ছা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে